মাহে রমজান : পালনীয় কিছু টিপস

0

শুয়াইব আহমদ নাঈম ::

এক.
আপনি অতিরিক্ত পানখোর। যেখানে যান, পান ছাড়া আপনার চলে না। পানের পিক দিয়ে আশপাশ সব লাল করে ফেলেন। এই বদঅভ্যাসের উপর আপনি নিজেই লজ্জিত। কিন্তু কোনোভাবেই পান চিবানো পরিত্যাগ করতে পারছেন না। পান খাওয়া পরিহার করার জন্য রমজান উপযুক্ত সময়। রমজানকে কেন্দ্র করে আপনি ছেড়ে দিতে পারেন পান খাওয়ার মত বদঅভ্যাসকে। সারাদিন তো খেতে পারেন না, একটু কষ্ট করে রাতেও খাবেন না। ব্যস! হয়ে গেলো।

দুই.
সেহরি খেয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। ঘুম থেকে উঠেই দেখেন, পেটটা একদম খালি হয়ে গেছে। অর্থাৎ খাবার-দাবার সব হজম হয়ে গেছে। পুরোটাদিন খুব কষ্টে অতিবাহিত হয়। আপনি একটা কৌশল অবলম্বন করতে পারেন। সেহরির সময় খাবারগুলো তুলনামূলক কম চিবিয়ে খেয়ে নিবেন। এতে খানা হজম হতে সময় লাগবে। আর সেহরির সময় পানি একটু কম পান করে খানা খাবেন বেশী করে।

তিন.
সারাদিন কোনোকিছু না খাওয়ার কারণে দাঁতে ময়লা জমে যায়। মুখে বিশ্রি গন্ধ করে। ব্রাশ কিংবা মাজন দিয়ে দাঁত মাজতে পারেন না। কারণ রক্ত বের হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা। আপনি বিশ টাকা দিয়ে ভালো দেখে একটা মিসওয়াক কিনুন। এবং প্রতি ওয়াক্ত নামাজের পূর্বে মিসওয়াক করুন। আশা করি দাঁতের ময়লা এবং দুর্গন্ধ দূরিভূত হবে। সেই সাথে রাসূল সা. -এর সুন্নাতের উপর আমলও হয়ে যাবে। (এক গুলি দুই শিকার যাকে বলে আরকি।)

চার.
রাতে ঘুমালে সেহরির সময় জাগতে পারেন না। মেসে থাকেন, ডেকে দেওয়ারও কেউ নেই। অ্যালার্ম বাজলে সেটাও শুনতে পান না। শোয়ার পূর্বে আপনি বেশ কয়েক গ্লাস পানি পান করুন। সেহরির সময় পেশাবের বেগ পাবে, অটোম্যাটিকলি জেগে যাবেন। অথবা পা একখানা সামান্য উঁচু কোনোকিছুর সাথে বেঁধে রাখুন, নড়াচড়া করার সময় পা টান খাবে, আপনি জেগে যাবেন। এতে ঘুমের কিছুটা ব্যাঘাত ঘটলেও সেটা দিনের বেলা পুষিয়ে নিবেন। ব্যাপার না।

পাঁচ.
দিনের বেলা সময় কাটে না। কী করবেন, ভেবে পান না! কিছুই করতে হবে না আপনাকে। শুধু কুরআন তেলাওয়াত করুন। কিছুক্ষণ তেলাওয়াত করে ক্লান্তি আসবে, একবার ঘুমিয়ে পড়ুন। ঘুম থেকে জাগ্রত হয়ে অজু করে আবার তেলাওয়াতে বসুন। ক্লান্তি আসলে আবার ঘুমান, আবার তেলাওয়াত করুন। এভাবে পুরো রমজান মাস কুরআন তেলাওয়াতের মধ্যে কাটান! গান, নাটক, সিনেমা, মুভি, ফিল্ম, টেলিফিল্ম ইত্যাদি দেখা থেকে বিরত থাকুন। নেটে কম আসার চেষ্টা করুন। কারণ, নেটে আসলেই অনিচ্ছাকৃতভাবে নিষিদ্ধ জিনিস দৃষ্টিগোচর হয়ে যায়। আর রমজানে দিনের বেলা ভুলেও প্রেমালাপে লিপ্ত হবেন না। মনে রাখবেন, কিছু মানুষ রোজা রেখে সারাদিন উপবাস থাকার কষ্টটা ব্যতিত বিন্দুবিসর্গও পাবে না…

Comment

Share.

Leave A Reply