মুফতী ত্বকী উসমানীর চিন্তা-চেতনা ও বিশ্বব্যাপী বর্ণাঢ্য কর্মপরিধি

0

সৈয়দ আনোয়ার আবদুল্লাহ

চিন্তার ব্যাপকতা
জুনায়েদ জমশেদ পপ তারকা।  দুনিয়াজুড়ে ছিল যার গানের দাপট। একদিন এক জিয়নকাঠির স্পর্শে তিনি বদলে গেলেন। মুবাল্লিগে ইসলাম মাওলানা তারিক জামিল ছাহেবের পরশে তিনি তাবলীগের দা’য়ীতে পরিণত হলেন। তিনি গান ছাড়লেন, আমৃত্যু তাবলিগের পেছনে মেহনত করেছেন।

একদিন দারুল উলুুম করাচিতে একটি কনফারেন্সে গেলেন মাওলানা তারিক জামিলের সাথে। পরিচয়ের পর জমশেদকে জড়িয়ে ধরলেন, শায়েখ ত্বকী উসমানী। ডায়রি থেকে বের করে দিলেন নিজের রচিত একটি গান।  বললেন,তুমি এটির সুর দিবে। গান ছাড়ার প্রযোজন নেই শুধু নিয়ত আর ধররনটাকে তুমি বদলে দাও। জুনাইদ জমশেদ গানের সুর দিলেন। এরপর একদিন গেলেন করাচির হযরত হাকীম মাওলানা মোহাম্মদ আখতার ছাহেবের মাহফিলে। জুনাইদ জমশেদকে পেয়ে করাচির হযরত গজল গাইতে বললেন, তিনি গাইলেন মুফতি ত্বকী উসসানীর লেখা “দুনিয়া কা মুসাফির মঞ্জিল তেরে কবর হু।”

শুনে করাচির হযরত কাঁদলেন। বললেন তুমি গজল গাইবে। জুনাইদ জমশেদ ত্বকী উসমানীর লেখা গান দিয়ে ইসলামি সঙ্গিতের ক্যাসেট বের করলেন। যা উর্দু গানের সব রেকডকে ছাড়িয়ে বিক্রিতে শীর্ষ হয়ে গেল।

ঘটনাটি বলার উদ্দেশ্য হল, পাকিস্তানের আলেমগন কতোটা যুগ সচেতন। তারাই আবার জামানার সবচেয়ে বড় বুযুর্গ ।আবার যুগ সচেতন আধুনিক আলেম। একজন পপ তারকা গান ছেড়ে দ্বীনে এলেন। কিন্তু তাকে কেবল তাবলীগে না লাগিয়ে উর্দু ইসলামি সংস্কৃতি অঙ্গনকে সমৃদ্ধি করতে কতো গভীরে চিন্তা করে কাজে লাগিয়ে দিলেন।

আল্লামা মুফতি ত্বকী উসমানী, স্বমহিমায় ভাস্বর এক মনীষা

অন্যরকম একজন
কে এই আল্লামা মুফতি ত্বকী উসসানী। বিশ্বখ্যাত জ্ঞানতাপস। বিদগ্ধ পণ্ডিত। প্রতিতযশা আলেমেদ্বীন। পড়েছেন আইন বিষয়ে।  চীফ  জাস্টিস ছিলেন। মাদরাসার শায়খুল হাদীস। সুলেখক। সুবক্তা। বিশ্বখ্যাত পর্যটক। সারা দুনিয়াতে নানা বিশ্ববিদ্যালয় ও জামেয়াতে তার রচিত গ্রন্থ পাঠ্যবই। পৃথিবীজুড়ে যার অগণিত ছাত্র। একজন স্বার্থক নববী উত্তরাধিকার। পৃথিবীব্যাপি যার জ্ঞান ও প্রজ্ঞার বিস্তৃতি। কাজ করেন নানান অঙ্গনে। দুনিয়াজুড়ে যার কাজেন ব্যাপক পরিধি। নানান বিশ্ব সংস্থার সাথে জড়িত। যার লিখিত গ্রন্থ পৃথিবীজুড়ে নানান ভাষায় অনুদিত।

আমরা তাকে দেখি, বিভিণ্ন মাধ্যমে; তিনি নাতিদের নিয়ে ক্রিকেট খেলেন, শরীরচর্চা করেন। আবার নিজ হাতে বাজার হাট করেন। টিভিতে বড় বড় তারকাদের সাথে টকশো করেন সমসাময়িক বিষয় নিয়ে। বড় ভাই রফি উসমানীর কাছে নিজেদের মসজিদে ছাত্রের মতো বসেন। আবার তাবলীগেও বের হয়ে পড়েন। সময় পেলে তরুণদের সাথে আড্ডাতে মেতে উঠেন। আর কত বৈচিত্রময় তাঁর বর্ণিল জীবন।

সাদামাটা আল্লামা
এতো উচু মাপের একজন এলমি শায়েখ কত সহজ জীবন যাপন। প্রতিদিন কোন প্রকার অনুমতি ছাড়া একটি নিদৃষ্ট সময় তিনি সাধারন মানুষের সাথে কাটান। তাদের নানান সমস্যার কথা শুনেন। পরামর্শ দেন। বাজারে করছেন ত্বকী উসমানী এক সাধারন মানুষ দৌড়ে এসে হাতে ধরে একটি মাসয়ালা জানতে চায়, হাতে সময় ছিল বর্তমান দুনিয়ার গ্যাণ্ড মুফতি একটি দোকানে বসলেন লোকটিকে নিয়ে। পান্জাবির পকেট থেকে মোবাইল বের কররে তার নিজের ওয়েবসাইট খুজে সেই মাসয়ালাটি তথ্য সহহ কাগজে ছুট করে লেখে দিলেন। কোন অহমিকা বা আলাদা কোন বাব নেই। তার মোবাইল নাম্বার সবার জন্য উম্মোক্ত। রিসিভ করার জন্য কোন পিএস বা খাদেম নেই।

ঐতিহ্যবাহী রক্তধারা
জাস্টিস মুফতী মুহাম্মাদ তাকী উসমানী (محمد تقی عثمانی ) (জন্ম:১৯৪৩) বিশ্বের একজন প্রখ্যাত ইসলামী ব্যক্তিত্ব। তিনি ১৯৮০ সাল থেকে ১৯৮২ সাল পর্যন্ত পাকিস্তানের কেন্দ্রীয় শরীয়াহ আদালতের এবং ১৯৮২ থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত পাকিস্তান সুপ্রিম কোর্টের শরীয়াহ আপিল বেঞ্চের বিচারক ছিলেন। তিনি ইসলামী ফিকহ্ ,হাদিস, অর্থনীতি এবং তাসাওউফ সম্পর্কে বিশেষজ্ঞ। তিনি এক ঐতিহ্যবাহী খান্দানের মনীষা। তার রক্ত ধারায় এক শরাফতি স্রোতধারা বহমান। বিখ্যাত তাফসীরগ্রন্থ “মাআরিফুল কোরআন”এর রচয়িতা মুফতি শফী উসমানীর সন্তান এবং বিখ্যাত দুই ইসলামী ব্যক্তিত্ব মাওলানা রফী উসমানী ও মাওলানা ওয়ালী রাজীর ভাই।

পড়ালেখা
মাওলানা তাকী উসমানী ১৯৪৩ সালে ভারতের উত্তর প্রদেশের সাহারানপুর জেলার দেওবন্দ নামক স্থানে জন্মগ্রহণ করেন। দারুল উলূম করাচী থেকে আলীম ডিগ্রী অর্জন করার পর তিনি তাঁর পিতা পাকিস্তানের গ্র্যান্ড মুফতি মাওলানা শফী উসমানীর তত্ত্বাবধানে ইসলামী ফিকহে উচ্চতর শিক্ষা অর্জন করেন। ১৯৬১ সালে তিনি দারুল উলুম করাচী থেকে ইসলামিয়্যাতে তাখাস্সুস (পি.এইচ.ডির সমমানের ডিগ্রি) সম্পন্ন করেন। তিনি পাঞ্জাব বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আরবী সাহিত্যে এম.এ (Master of Arts) ডিগ্রী এবং করাচী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এল.এল.বি (Bachelor of Laws) ডিগ্রী অর্জন করেন। এছাড়াও ইংরেজি ভাষায় তার বিশেষ পান্ডিত্য রয়েছে।

আপন বড় ভাই মুফতী রফী উসমানীর সামনে মসজিদে এভাবেই পরম বিনয়ে নতুজানু হয়ে পরামর্শরত

যাদের সোহবতে বেড়ে উঠা
তিনি শায়খ হাসান মাশাত, মুফতী মুহাম্মদ শফী উসমানী, মাওলানা ইদ্রীস কান্দলভী, মুফতী রশীদ আহমাদ লুধিয়ানভী এবং শায়খুল হাদীস মুহাম্মদ যাকারিয়া কান্ধলভীর কাছ থেকে হাদীস বর্ণনার ইজাযত (অনুমতি) গ্রহণ করেন। তাসওউফের গুরুত্ব অনুধাবন করে দেওবন্দের আলিমদের ধারা অনুসারে তিনি আশরাফ আলী থানভী (র:)এর দুই খলিফা শায়খ ডা: আব্দুল হাই আরিফী এবং মাসীহুল্লাহ খান থেকে বাইআত গ্রহণ করেন।

কাজের ব্যাপকতা
“মিজান ব্যাংক” প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে পাকিস্তানে সর্বপ্রথম তিনিই ইসলামী ব্যাংকিং চালু করেন। তিনি ইসলামের বিভিন্ন বিষয় সম্পর্কে আরবী,উর্দূ এবং ইংরেজী ভাষায় উল্লেখযোগ্য সংখ্যক গ্রন্থের প্রণেতা। এছাড়াও ইসলামী ব্যাংকিং ও অর্থনীতি সম্পর্কে তিনি বিভিন্ন পত্রিকা ও সাময়িকীতে অনেক প্রবন্ধ লিখেছেন। ২০০৪ সালের মার্চ মাসে মাওলানা তাকী উসমানীকে দুবাইয়ে আন্তর্জাতিক ইসলামী অর্থনীতি সংস্থার International Islamic Finance Forum (IIFF) বার্ষিক অনূষ্ঠানে সংযুক্ত আরব আমিরাতের প্রধানমন্ত্রি ইসলামী অর্থনীতিতে তাঁর অবদান ও অর্জনের কারণে বিশেষ সম্মাননা প্রদান করে।

 তাসাউফ ও অধ্যাপনা
প্রতি সপ্তাহের রবিবার তিনি করাচীর দারুল উলুম মাদরাসায় তাযকিয়াহ তথা আত্মশুদ্ধি সম্পর্কে বয়ান করেন। বর্তমানে তিনি দারুল উলুম করাচীতে সহীহ বুখারী, ফিকহ এবং ইসলামী অর্থনীতির দরস দেন। এছাড়া করাচি কলেজ ও করাচি বিশ্ববিদ্যালয়ে নিয়মিত অর্থনীতির ক্লাসে অধ্যাপনা করান। তিনি তাঁর ‘ইসলাহী খুতুবাত’এর কারণে ব্যাপক প্রসিদ্ধ এবং পরিচিত।

ক্রিকেট ব্যাট হাতে মুফতি ত্বকী উসমানী

আন্দোলনের নেতা

পাকিস্তানের ইসলাম বিরোধি যেকোন আন্দোলনে তিনি অগ্রনি ভুমিকা পালন করে যাচ্ছেন বারবারই, ১৯৭০ সালে প্রেসিডেন্ট যুলফিকার আলী ভুট্টোর আমলে পাকিস্তান ন্যাশনাল এ্যাসেম্বলি কর্তৃক কাদিয়ানীদের অমুসলিম ঘোষণা করার ব্যাপারে আলিমদের মধ্য হতে তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন। জেনারেল জিয়াউল হকের শাসনামলে হদ্দ, ক্বিসাস এবং দিয়ত সম্পর্কিত আইন প্রণয়নে তিনি অগ্রবর্তি ভূমিকা পালন করেন। বিশ্বব্যাপি ইসলাম বিরোধি চক্রান্তে তিনি সব সময় সোচ্ছার ভুমিকা পালন করেন।

মুবাল্লিগে ইসলাম

ব্যক্তিগত উদ্দ্যোগে লেখনি, খুৎবা,বয়ান বক্তৃতা, তাসাউফের মেহনত সব কিছুিই তার মহান দাওয়াতি কাজ। তাছাড়া তিনি পাকিস্তানের রায়বেন্ড মার্কাজের অন্যতম পরাসর্শক। নিয়মিত শরিক হন তাবলিগের বিশেষ পরাসর্শ জোড় ও ইজতেমায়। মাঝে মধ্য জামাতবদ্ধ হয়ে বের হন দেশ বিদেশে তাবলীগের সফর। বর্তমান সারা দুনিয়াতে তাবলীগের যাবতীয় কাজ চলে তার ফতোয়ার আলোকে।

সম্পাদনা

১৯৬৭ সাল হতে মুফতী মুহাম্মাদ তাকী উসমানী মাসিক উর্দু পত্রিকা ‘আল বালাগ’ –এর প্রধান সম্পাদকের ভূমিকা পালন করে আসছেন। এছাড়াও তিনি ১৯৯০ সাল থেকে প্রকাশিত ইংরেজি “Albalagh International”-এর চিফ এডিটর। পাকিস্তানের প্রথম সারির দৈনিক পত্রিকাগুলোতে তার প্রবন্ধ-নিবন্ধ নিয়মিত প্রকাশিত হয়। আরবী, ইংরেজি ও উর্দুভাষায় তার রচিত বইয়ের সংখ্যা ৬০এরও অধিক। বাংলাসহ বিশ্বের প্রায় ৭০টি ভাষায় তার বই অনুদিত হয়েছে।

আলোচনার টেবিলে মুফতী ত্বাকী উসমানী

বিশ্ব্যব্যাপি যার কর্মযজ্ঞ
বর্তমান তিনি নিম্নের সংস্থাগুলোর সাথে জড়িত: ১. ভাইস প্রেসিডেন্ট ও স্থায়ী সদস্য, আন্তর্জাতিক ইসলামিক ফিক্বাহ একাডেমী, sponsored by OIC, জেদ্দা ২. ভাইস প্রিন্সিপ্যাল ও শাইখুল হাদীস, দারুল উলুম করাচী ৩. চেয়ারম্যান, Shari’a Standard Council)Accounting and Auditing Organization of Islamic Financial Institutions, বাহরাইন ৪. চেয়ারম্যান, শরীয়া বোর্ড, কেন্দ্রীয় ব্যাংক, বাহরাইন ৫. চেয়ারম্যান, শরীয়া বোর্ড)Amana Investments Limited, শ্রীলংকা ৬. চেয়ারম্যান, শরীয়া বোর্ড, আবু ধাবী ইসলামী ব্যাংক, আরব আমিরাত ৭. Member of Shari’a Supervisory Board, Guidance Financial Group, যুক্তরাষ্ট্র ৮. প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান, শরীয়া বোর্ড, মীযান ব্যাংক, পাকিস্তান ৯. চেয়ারম্যান, শরীয়া বোর্ড, দুবাই ব্যাংক, দুবাই ১০. চেয়ারম্যান, শরীয়া বোর্ড, ইসলামী ব্যাংক পাকিস্তান লিমিটেড ১১. সদস্য, জমিয়াতুল উলামা যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাষ্ট্র ১২. চেয়ারম্যান, শরীয়া বোর্ড, Pak Qatar Takaful ১৩. সদস্য, ইসলামিক ফিক্বাহ একাডেমী, রাবেতা-আল-আলমে ইসলামী, মক্কা ১৪. চেয়ারম্যান, Centre for Islamic Economics,

পাকিস্তানে যা করেছেন
নিজ দেশ পাকিস্তানেে পূর্বে যে সকল সংস্থাগুলোর সাথে জড়িত ছিলেন: ১. বিচারক, কেন্দ্রীয় শরীয়াহ আদালত, পাকিস্তান (১৯৮০-১৯৮২) ২. বিচারক, শরীয়াহ আপিল বেঞ্চ, সুপ্রিম কোর্ট, পাকিস্তান (১৯৮২-২০০২) ৩. সদস্য, Syndicate University of Karachi (১৯৮৫-১৯৮৮) ৪. সদস্য, Board of Governors, আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামাবাদ (১৯৮৫-১৯৮৯) ৫. সদস্য, International Institute of Islamic Economics (১৯৮৫-১৯৮৮) ৬. সদস্য, Council of Islamic Ideology (১৯৭৭-১৯৮১) ৭. সদস্য, Board of Trustees, আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামাবাদ। (২০০৪-২০০৭) ৮. সদস্য, Commission for Islamisation of Economy, পাকিস্তান।

লিখত গ্রন্থাবলী

বাজার করছেন আল্লামা ত্বকী উসমানী

মুফতি তাকী উসমানী লিখেছেন নানান ভাষায় দুই শাতাধিক গ্রন্থ। তার মধ্যে আলোড়ন সৃষ্টিকারি বিখ্যাত কয়েকটি গ্রন্থ-

*Ma’ariful Qur’an. (আট খন্ড সম্বলিত ইংরেজি ভার্সন) তাফসীর গ্রন্থটি তার পিতা কতৃক উর্দুতে লিখিত হয়েছিল।

*The Meanings of the Noble Qur’an. (সংক্ষিপ্ত ব্যাখ্যাসহ কোর’আনের ইংরেজি অনুবাদ) * তাকমালা ফাতহুল মুলহীম (৬ খন্ডে সমাপ্ত সহীহ মুসলীম –এর ব্যাখ্যা গ্রন্থ)(আরবী) * উলুম-উল-কুরআ’ন (উর্দু)(কোরআ’নের বৈজ্ঞানিক বিশ্লেষন সম্পর্কিত গ্রন্থ যা An Approach to the Qur’anic Sciences. নামে ইংরেজিতেও প্রকাশিত হয়)

* ইন’আমুল বারী (৮ খন্ড সম্বলিত বুখারি শরীফের ব্যাখ্যাগ্রন্থ) * মা হিয়া আন নাসরানিয়্যা? (আরবী) * নাছরত ‘আবারহ হুল আত-তা’লীমি আল ইসলামিয়া (আরবী) * দরস-এ-তিরমিযী * তাকলিদ কি শর’য়ী হাইসিয়াত (মাযহাব অনুসরন করার শরয়ী ভিত্তি) * হযরত মুয়াবিয়া রযি. আওর তারিকি হাকায়িক (ইতিহাসের কাঠগড়ায় হযরত মুয়াবিয়া রযি.)

* An Introduction to Islamic Finance. * ইসলাম ও সমসাময়িক রাজনীতি * Islamic Laws of Animal Slaughter * ইসলাহী খুতুবাত * ইসলাম এবং আধুনিক অর্থনীতি ও বাণিজ্য * What is Christianity? * বাইবেল ছে কুরআন তাক (৩খন্ড) * দ্বীন প্রতিষ্ঠা : সমস্যাবলী * The Authority of Sunnah

*হাকিমুল উম্মাত আশরাফ আলী থানভীর রাজনৈতিক চিন্তাধারা * Perform Salah Correctly * সমাজ শুদ্ধিকরন

*Historic Judgment on Interest * The Legal Status of Following a Madhab * Quranic Sciences * Islam and Modernism * আত্মশুদ্ধির আবশ্যকতা * Contemporary Fatawa

-তথ্য সংগৃহীত

Comment

Share.

Leave A Reply