নতুন বছরর উপহার ফোর জি সেবা

0

আগামী জানুয়ারি মাস থেকেই দেশের মোবাইল ফোন গ্রাহকদের কাছে ফোর-জি সেবা পৌঁছে দেওয়া সম্ভব হবে আশা প্রকাশ করেছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। তিনি জানান, এই নেটওয়ার্কে প্রাথমিকভাবে মোবাইল ইন্টারনেটের স্পিড হবে প্রতি সেকেন্ডে ২০ মেগাবাইট।

গতকাল বুধবার দুপুরে সচিবালয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এসব কথা জানান প্রতিমন্ত্রী।

তারানা হালিম বলেন, ‘আমাদের সব সময়ই টার্গেট থাকবে যে যত দ্রুত সম্ভব। সে ক্ষেত্রে যদি আমাদের প্রক্রিয়াগুলো যেহেতু কিছু বাধ্যবাধকতা আছে, কনভারসন ফিগুলো জমা দেওয়ার ব্যাপার আছে, কত দ্রুত তাঁরা ফি জমা দেন এই বিষয়গুলো আছে। তো এগুলো মাথায় রেখে ডিসেম্বরের মধ্যে আমরা কাজটা শুরু করে দিতে চাচ্ছি। সেবার ক্ষেত্রে আমরা মোটামুটি নতুন বছরের প্রথমে জানুয়ারি থেকেই আশা করছি যে জনগণের কাছে আমরা এই সেবাটা পৌঁছে দিতে সমর্থ হব।’

প্রতিমন্ত্রী আরো জানান, মোবাইল অপারেটরদের আপত্তি মেনে ফোর-জি লাইসেন্স গাইডলাইন এবং স্পেকট্রাম অকশন গাইডলাইনে যেসব পরিবর্তন আনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল তাতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার অনুমোদন পাওয়া গেছে। এখন বাংলাদেশ টেলিফোন রেগুলেটরি কমিশন (বিটিআরসি) অপারেটরদের কাছ থেকে নির্ধারিত ফি আদায়সহ অন্যান্য কার্যক্রম সম্পন্ন করবে। এরপর ফোর-জি সেবা গ্রাহকদের জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হবে।

অপারেটরদের আপত্তি মেনে বিভিন্ন ফি পুনর্নির্ধারণ, আউটসোর্সিং-এর ক্ষেত্রে বিটিআরসির পূর্ব-অনুমোদন প্রত্যাহার, রেকর্ড সংরক্ষণের সময়সীমা কমিয়ে আনাসহ বিভিন্ন সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলেও প্রেস ব্রিফিংয়ে জানানো হয়।

Comment

Share.

Leave A Reply