মাওলানা সা’দকে আলেমদের সাথে বসার আহবান মুফতি বুরহান উদ্দিন রব্বানির

0
প্রিয় ভাই! দাওয়াতে তাবলিগ উলামায়ে দেওবন্দের রেখে যাওয়া আমানত। মোবারক এই জামাতে আজকে চরম অস্থিরতা বিরাজ করছে। আপনার কিছু কথাবার্তাকে কেন্দ্র করে উলামায়ে কেরাম আপনার বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন। আপনি অনেকদিন থেকে আপনার অবস্থানে অনড় রয়েছেন। এটাকে কেন্দ্র করে পুরো পৃথিবীতে অস্তিরতা ছড়িয়ে পড়েছে। আপনি বাংলাদেশে আসাকে কেন্দ্র করে সেটি আন্দোলনের রূপধারণ করেছে।
আপনার প্রতি আমার অনুরোধ- দয়া করে আপনি বাংলাদেশের শীর্ষস্থানীয় আলেমদের সাথে বসুন। সমস্যার সমাধান নিয়ে কথা বলুন। ক্ষুদ্রতম স্বার্থ পরিত্যাগ করে আলেমদের সাথে বসে বিষয়টি সমাধান করাই হবে আপনার বিচক্ষণতার প্রমাণ। প্রমাণিত হবে আসলেই দাওয়াতের জন্য দরদ রয়েছে আপনার অন্তরে।
শ্রদ্ধাভাজন উলামায়ে কেরাম! কোনো ধরণের সমাধান ছাড়া সাদ সাহেব বাংলাদেশ থেকে ফিরে গেলে আখেরে এটি অনেক বড় ফিতনার দরজা খুলে যাবে। এজন্য আপনারা যে কোনো মূল্যে সাদ সাহেবের সাথে বসার চেষ্টা করুন। যাতে তিনি তার ভুলগুলো বুঝতে পারেন। হতে পারে তার আশপাশের লোকেরা তাকে সঠিক অবস্থা সম্পর্কে অবগত করছে না। বরং উলামায়ে কেরাম সম্পর্কে ইনিয়ে-বিনিয়ে তার অন্তরে খারাপ ধারণা তৈরীর চেষ্টা করছে।
এছাড়া সাদ সাব সমাধান ছাড়া ফিরে গেলে জানসাধারণ এবং আলেমদের মাঝে চিরস্থায়ী বিরোধ সৃষ্টি হবে।
তাবলিগের মুরব্বি ও সাথী ভাইয়েরা! তাবলিগের মত মুবারক মেহনতকে সুরক্ষার জন্য আপনারা উদ্যোগী হন। মাওলানা সাদ সাহেবকে আপনারা এ বিষয়টি বুঝান যে, উলামায়ে কেরাম তার কল্যাণকামী। তিনি উলামায়ে কেরামের সাথে বসে মনবিনিময় করে বিষয়টি সমাধান করে ফেলেন। এতে সকলের জন্য কল্যাণ হবে। বিশেষ করে তাবলিগের মত মুবারক মেহনত ফিতনা থেকে রক্ষা পাবে। বাংলাদেশ সরকার মহোদয় এক্ষেত্রে উদ্যেগ নিতে পারে। তারা মাওলানা সাদ সাহেবের সাথে উলামায়ে কেরাম বৈঠকের ব্যবস্থা করে উভয় দলের মাঝে সমঝোতা করাতে পারে।
সমঝোতা না করে সাদ সাব ফিরে গেলে বহি:র্বিশ্বে বাংলাদেশের ভাবমূর্তি নষ্ট হবে। সাদ সাহেব আরো জেদি হয়ে বাংলাদেশ থেকে বিশ্ব ইজতেমা সরানোর চিন্তা করতে পারেন। আল্লাহ না করুক, ইজতেমা বাংলাদেশে না হলে বিভিন্ন দিক থেকে রাষ্ট্র ও দেশের মুসলমানগণ ক্ষতিগ্রস্থ হবে।
আল্লাহ আমাদের সকলকে সহিহ বুঝ দান করুন। দাওয়াতের মুবারক এই মেহনতকে সকল প্রকার ফিতনা থেকে হেফাজত করুন।
আসুন, আমরা সকলেই আল্লাহর দিকে মনোনিবেশ করি। বেশি বেশি করে দোয়া এবং ইসতেগফার করি।

Comment

Share.

Leave A Reply