রবি ও সোমবার ভারতের বদরপুর টাইটেল মাদরাসার খতমে বোখারী অনুষ্ঠান

0

আগামী ১৪ জানুয়ারী ২০১৮, রবিবার সকাল ১০ ঘটিকা থেকে ১৫ জানুয়ারী সোমবার ফজর পর্যন্ত ভারতের আসাম রাজ্যের প্রাচীনতম দ্বীনি মার্কায ‘আল জামিয়াতুল আরাবিয়াতুল ইসলামিয়া’ দেওরাইল টাইটেল মাদরাসার ৬৬ তম বার্ষিক অনুষ্ঠান, দস্তারবন্দী ও খতমে বোখারী মাহফিল আল জামিয়া প্রাঙ্গণে অনুষ্ঠিত হবে। পাশাপাশি প্রথানুযায়ী উত্তর-পূর্ব ভারত এমারতে শরীয়াহ ও নদওয়াতুত্ তামীরের ৫৩ তম বার্ষিক সম্মেলনও হবে।
এই জামেয়ায় হাদীসের মসনদ শায়খুল হাদীস আল্লামা আতিকুল হক তুরুকখলী রহ., আল্লামা মুশাহিদ বাইয়মপুরী রহ., (১৯৪৭ সাল পর্যন্ত) ও শায়খুল হাদীস ওয়াত্ তরীকত আল্লামা আবদুল জলীল চৌধুরী বদরপুরী রহ. (১৯৪৭ সাল থেকে ১৮ ডিসেম্বর ১৯৮৯) সিলেটের তিনজন মনিষী অলংকৃত করেছিলেন।
তবে আল্লামা আবদুল জলীল চৌধুরী বদরপুরী রহ. এরব্যাপক পরিশ্রমে আজ গোটা উত্তর-পূর্ব ভারত হেদায়তের আলোয় আলোকিত। তাঁরই প্রচেষ্টায় উত্তর-পূর্ব ভারতে ৫৩ বছর যাবত এমারতে শরীয়াহ কার্যকর।
বদরপুরের খতমে বোখারী মানেই পূর্ব সিলেটে উৎসবের আমেজ ছিল। উত্তর-পূর্ব ভারতের প্রত্যন্ত এলাকা থেকে ছুটে আসেন মুসল্লীরা। আগে আগে সীমান্ত পাড়ি দিয়ে শত শত মুসল্লী বদরপুরের খতমে বোখারীতে অংশগ্রহণ করতেন। তখন ভারতীয় সীমান্তরক্ষী বাহিনী মুসল্লীদেরকে সুযোগ দিত। কিন্তু ১৯৮৯ সালে হযরত বদরপুরী রহ.’র ইন্তেকালের পর বাংলাদেশী মুসল্লীদের সে সুযোগ বন্ধ হয়ে যায়। এখন ভিসা লাগিয়ে যাওয়ার ঝক্কি-ঝামেলা সয়ে খতমে বোখারীতে শরীক হতে হয়। তাই সেখানে সিলেটীদের অংশগ্রহণের হার দিন দিন কমে এসছে। তবুও বাংলাদেশের প্রতিনিধিদলের উপস্থিতি প্রতিবছরই থাকে।

এবারো বাংলাদেশের প্রতিনিধি দল অংশগ্রহণ করবে মোবারক এই মাহফিলে।

Comment

Share.

Leave A Reply