জৈন্তাপুরে মাজারপন্থীদের হামলার ঘটনায় জমিয়তের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ

0

সিলেটের জৈন্তাপুরে নামধারী সুন্নী ও ভ্রান্তমতবাদে বিশ্বাসী আটরশি অনুসারীদের হিংস্র হামলায় মাদ্রাসার ছাত্র-শিক্ষক হতাহতের ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশ এর সভাপতি আল্লামা আব্দুল মু’মিন শায়েখে ইমামবাড়ি ও মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী। একই সাথে জমিয়তের নেতৃদ্বয় জৈন্তাপুর ঘটনার সাথে জড়িত অপরাধীদের দ্রুত গ্রেফতার ও কঠোর শাস্তি দাবী করেছেন।

আজ (মঙ্গলবার) বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রেরিত এক বিবৃতিতে জমিয়ত নেতৃদ্বয় সিলেটের জৈন্তাপুরের ঘটনায় আরো বলেন, হক্কানি উলামায়ে কেরামের সাথে দলীল-প্রমাণ ও যুক্তিতর্কে না পেরে গোমরাহী মতবাদে বিশ্বাসী আটরশির অনুসারী সন্ত্রাসীরা রাতের আঁধারে মাদ্রাসার নিরীহ শিক্ষক ও ছাত্রদের উপর অতর্কিত সশস্ত্র হামলা চালিয়ে বর্বোরোচিতভাবে ৩ জনকে হত্যা ও বহু আলেম-উলামা ও মাদ্রাসা ছাত্রকে আহত করে। ভণ্ড আটরশি সন্ত্রাসীদের এমন হিংস্রতা ও নিষ্ঠুরতায় সারাদেশের মানুষ হতভম্ব, শোকাহত ও বিক্ষুব্ধ। জৈন্তাপুরের ঘটনায় গোমরাহীর অনুসারী আটরশি ভক্তরা সাদাসিধে ও সরল জীবন যাপনে অভ্যস্ত কওমি মাদ্রাসার শিক্ষক-ছাত্রদের উপর রাতের আঁধারে হামলা চালিয়ে হতাহত করে প্রমাণ করল যে, তারা শুধু ভণ্ডামিতেই নয়, বরং সন্ত্রাসী কর্মকান্ডেও পিছিয়ে নেই।

জমিয়ত সভাপতি ও মহাসচিব হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করে বলেন, গতরাতের জৈন্তাপুরের ঘটনায় পুরো সিলেট অঞ্চলে অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতি বিরাজ করছে। সাধারণ জনতা কোনভাবেই এমন ন্যাক্কারজনক হামলার ঘটনা মেনে নিতে পারছেন না। এই ঘটনার জেরে সারা দেশের তৌহিদীজনতার মাঝেও দ্রুত ক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ছে। দেশের আলেম সমাজ কখনোই চায় না, আইন নিজের হাতে তুলে নিতে। আমরা প্রশাসনের কাছে জোর দাবী জানাচ্ছি, অবিলম্বে জৈন্তাপুরের ঘটনায় জড়িত চিহ্নিত সকল সন্ত্রাসীকে গ্রেফতার করে কঠোর বিচারের মাধ্যমে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করতে হবে। অন্যথায় গণমানুষের ক্ষোভের আগুনে উদ্ভূত যে কোন পরিস্থিতির জন্য সরকারই দায়ী থাকবে।

বিবৃতিতে জমিয়ত নেতৃদ্বয় সিলেটের নৃশংস হামলার ঘটনায় শহীদদের রুহের মাগফিরাত কামনা করেন। পাশাপাশি আহতদের যথাযথ উন্নত চিকিৎসার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে সরকারের প্রতি আহবান জানান।

Comment

Share.

Leave A Reply