মুসলিমদের নিয়ে যুক্তরাজ্যের কাউন্সিলর প্রার্থীর বিতর্কিত মন্তব্য

0

যুক্তরাজ্যের নিউক্যাসল সিটি কাউন্সিল নির্বাচনের একজন প্রার্থী ইসলামকে ‘বর্বর শয়তানের ধর্মাচরণ’ বলে অভিহিত করেছেন। তিনি কখনো একজন মুসলিমকে বিশ্বাস করেন না বলেও মন্তব্য করেন।

কিম কিমবারলি-ব্ল্যাকস্টার নামে ওই মুসলিম বিদ্বেষী এও প্রস্তাব করেছেন যে, রানির উচিত ব্রেক্সিটের আইনি চ্যালেঞ্জকারী জিনা মিলারকে তার ‘গলা কেটে ট্রাফাল্গার স্কয়ারে ঝুলিয়ে দেয়া’।

তবে, কিমবারলি-ব্ল্যাকস্টার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে তার পোস্টগুলি সম্পর্কে মন্তব্য করতে অস্বীকৃতি জানিয়েছে।

তার এজেন্ট টনি স্যান্ডসন বলেন, তার মন্তব্যের অধিকাংশই ২০১৬ সালের এবং এটি তার মক্কেলের আসল দৃষ্টিভঙ্গিকে প্রতিফলিত করে না।

স্যান্ডারজন বলেন, ‘ফেসবুক পাতা থেকে এখন এসব মন্তব্য সরানো হয়েছে এবং আমরা মনে করি এ বিষয়ে আর কোনো পদক্ষেপ নেয়ার প্রয়োজন নেই।’

ব্রেক্সিট সম্পর্কে একটি ফেসবুক পোস্টের মন্তব্যে কিমবারলি-ব্ল্যাকস্টার বলেন, ‘সমস্ত মসজিদ পারমানবিক বোমায় উড়িয়ে দেয়ার জন্য রানির উচিত তার বাহিনীকে নির্দেশ দেয়া এবং জেরুজালেম, মক্কা, ভ্যাটিক্যান এবং ব্রাসেলস আক্রমণ করা; যাতে আমরা আমাদের হারানো সাম্রাজ্য ফিরে পেতে পারি।’

তিনি মুসলিম ইমিগ্রেশন নিষিদ্ধের জন্য দাবি জানান এবং বলেন, ‘যারা আমাদের দেশকে পছন্দ করেন না … তাদেরকে অন্য দেশে নির্বাসনে পাঠানো উচিত।’

লন্ডনের একটি টিউব ট্রেন থেকে একজন মুসলিম ব্যক্তিকে জোরপূর্বক নামিয়ে দেয়া সম্পর্কে একটি পোস্টের জবাবে তিনি বলেন, ‘মারাত্মক ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পেতে তাকে নামিয়ে দেয়াটাই বরং ভাল হয়েছে।’

তিনি বলেন, ‘এই পরিস্থিতির জন্য মুসলিমরা নিজেরাই দায়ী।’

২০১৬ সালে কিমবারলি-ব্ল্যাকস্টার এক মন্তব্যে বলেছিলেন, যদি ডোনাল্ড ট্রাম্প প্রেসিডেন্ট হন, তাহলে লন্ডনের মেয়র সাদিক খান সিআইএ’র প্রথম টার্গেট হবেন।

এছাড়াও, তিনি হালাল খাবার নিষিদ্ধ করা উচিত বলে মত দেন।

 

এব্যাপারে নিউক্যাসল সিটি কাউন্সিল মুখপাত্র বলেন, ‘স্থানীয় নির্বাচনের জন্য প্রার্থীসহ যেকোন উপাদান নিয়ে যদি কোনো ব্যক্তি অসন্তুষ্ট হন, তাহলে তিনি তারা রিটার্নিং অফিসারের কাছে অভিযোগ করতে পারেন। রিটার্নিং অফিসাররা এসব অভিযোগ পরে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করবে।’

তবে, এই পোস্টগুলি সম্পর্কে এখনো পর্যন্ত কোনো অভিযোগ পাওয়া যায়নি বলে তিনি জানান।

সূত্র: বিবিসি

Comment

Share.

Leave A Reply