ইলমি ময়দান দাপিয়ে বেড়ানো বিদগ্ধ আলেম শায়খ আব্দুর রহমান মনোহরপুরী

0

নূর উদ্দীন মুহাম্মদ ইয়াহইয়া ::

তিনি সময়ের শ্রেষ্ঠ এক শায়খুল হাদীস। ইলমী ময়দানে দাপিয়ে বেড়ানো এক বিদগ্ধ আলেম। একসময়ের বৃহত্তর সিলেটে আলোড়নসৃষ্টিকারি উস্তাদ। বর্তমান ইউরোপে প্রভাব বিস্তারকারী এক সাধক। সত্যিকার অর্থে মানুষ গড়ার কারিগর। যাঁর প্রতিটি ছাত্র তাকে প্রাণের চেয়েও বেশি ভালবাসে। তাঁর নাম শুনলেই ভক্তি-শ্রদ্ধায় গদগদ করতে থাকে। যাঁর ছোঁয়ায় অনেক পাথর সোনা হয়েছে এবং হচ্ছে। বলছিলাম আমার শ্রদ্ধেয় মামা আল্লামা শায়খ মুফতী আব্দুর রহমান (মনুর হুজুর/মনোহরপুরী হুজুর) হাফিজাহুল্লাহ এরই কথা।

জীবনে একান্ত আদর্শ হিসেবে মামাই হলেন আমার প্রথম চাওয়া। যাঁর প্রতিটি কাজ আমাকে অহর্নিশ অনুপ্রাণিত করে যাচ্ছে। যাঁর প্রতিটি কথা আমার চিত্তে মন্ত্রের মতো দাম কাটতে সক্ষম। যাঁর জীবন ধারা আমাকে পথ চলতে শেখায়। যাঁর গড়ে ওঠা, বেড়ে ওঠা আমাকে মুগ্ধ করে রাখে সারাক্ষণ। যাঁর ইলমী গভীরতা আমার মস্তিষ্ককে হয়রান করেই তবে ক্ষান্ত হয়। যাঁর উদার চিত্ত আমাকে আরো উদার হতে শেখায়। যাঁর কাছে আসলে আরো কাছে আসতে মন চায়। যাঁর কথা শুনলে আরো শুনতে মন চায়।মামার মধ্যে কী জানি একটি সম্মোহনী শক্তি আমাকে সম্মোহিত করে রাখে সর্বক্ষণ। আমার জীবনের প্রতিটি রন্ধ্রে রন্ধ্রে মামার অস্তিত্ব ম্রিয়মাণ হয়ে আছে। কখোনো নিজেকে খোঁজতে গেলে প্রথমে মামার উপস্থিতিই মুখ্য হয়ে উঠে আসে। মামাকে বাদ দিয়ে নিজের অস্তিত্ব কল্পনায়ই আসে না। মামার মূল্যমান নাম বেচে বেচে আমাদের জীবন চলা। জাযাকাল্লাহ আন্না আহসানাল জাযা। বারাকাল্লাহু ফী হায়াতিকা ওয়া ইলমিকা ওয়া আমলিকা। ওয়া নফাআনা বিউলুমিকা ওয়া ফুয়ূজিকা। আমীন।

পুনশ্চ: আমার গর্ব- আমি এই মামার ভাগ্না!
আমার গর্ব- আমি মনুর হুজুরের ভাগ্না! তবে, আমার দুঃখ- মনুর হুজুরের দরসী ছাত্র হতে না পেরে!
আমার দুঃখ- ভাগ্না হয়েও তাঁর কাছে থাকতে না পেরে!

Comment

Share.

Leave A Reply