ডেনমার্কে নেকাব ও বোরকা নিষিদ্ধ

0

পুরো মুখ ঢাকা পর্দা নিষিদ্ধ করেছে ডেনমার্ক। সম্প্রতি ইইউভুক্ত যেসব দেশ এ ধরণের নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে, তাতে সর্বশেষ সংযোজন দেশটি। এই নিষেধাজ্ঞার শিকার হচ্ছেন মূলত মুসলিম নারীরা, যারা নিকাব বা বোরকা পরেন। এ খবর দিয়েছে বিবিসি। খবরে বলা হয়, বৃহস্পতিবার ডেনমার্কের পার্লামেন্টে ৭৫-৩০ ভোটে এই নিষেধাজ্ঞার প্রস্তাব পাস হয়। আগামী ১লা আগস্ট থেকে এটি কার্যকর হবে।

এ নিয়ম কেউ না মানলে তাকে ১ হাজার ক্রোনার বা ১৫৭ ডলার জরিমানা পরিশোধ করতে হবে। পরবর্তীতে প্রতিবার এই আইন লঙ্ঘনের জন্য জরিমানার অর্থ বাড়বে। তবে ডেনমার্কের এই আইনে মুসলিম নারীদের কথা উল্লেখ করা হয় নি। বলা হয়েছে, যে-ই প্রকাশ্যে মুখ ঢাকা কাপড় পরবেন, তাকেই এই জরিমানা করা হবে। এই আইন নিয়ে ডেনমার্কের বিচারমন্ত্রী সরোন পেপ পোলসেন বলেন, মুখ ঢেকে চলাফেরা করাটা ডেনমার্কের মূল্যবোধের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ নয়। তবে মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল এই আইনের সমালোচনা করেছে।

সংস্থাটি বলছে, এই আইন নারী অধিকারের বৈষম্যমূলক লঙ্ঘণ। তবে এর আগে ইউরোপিয়ান মানবাধিকার আদালত বেলজিয়ামের মুখঢাকা বোরখা নিষিদ্ধের সিদ্ধান্ত বহাল রেখেছিল। ওই রায়ে বলা হয়, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি কোনো ব্যক্তিবিশেষের ধর্মীয় বহিঃপ্রকাশের অধিকারের উর্ধ্বে। প্রথম ইউরোপিয়ান দেশ হিসেবে ২০১১ সালের এপ্রিলে প্রকাশ্যে পুরো মুখঢাকা পোশাক নিষিদ্ধ করে ফ্রান্স। এরও ৭ বছর আগে অবশ্য দেশটি সরকারি স্কুলে ধর্মীয় পরিচয় বহন করে এমন কিছু পরিধান নিষিদ্ধ করে আইন পাস করেছিল। কয়েক মাস পর বেলজিয়ামও একই ধরণের আইন পাস করে। কোনো ব্যক্তির চেহারা অস্পষ্ট করে দেয় এমন কোনো পোশাক পরিধানের ওপর নিষেধাজ্ঞা ছিল বেলজিয়ামের আইনে। পূর্ণ বা আংশিক নিষেধাজ্ঞা পাস হয়েছে অস্ট্রিয়া, বুলগেরিয়া ও জার্মানির দক্ষিণাঞ্চলীয় বাভারিয়া অঙ্গরাজ্যে। ২০১৬ সালে ডাচ পার্লামেন্টও একই ধরণের নিষেধাজ্ঞা আরোপের ব্যাপারে সম্মত হয়। তবে দেশটির পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষ এখনও এই আইনে সম্মতি প্রদান করেনি।

Comment

Share.

Leave A Reply