সাহাবাদের অন্তরে রহস্যের জাল!

0

সাইফুল ইসলাম রিয়াদ ::

সাহাবি হযরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. বেশ আগ্রহী এবং কৌতূহলী হয়ে পড়লেন। লাগাতার তিন তিনটে দিন নবীজি সা. একই কথা বললেন!

“এখন একজন জান্নাতি লোক প্রবেশ করবেন।”

একজন আনসার সাহাবিকে দেখিয়ে তিনটি দিন নবীজির একই ভাষ্য- রহস্যের জাল বিছিয়ে দিল সাহাবা আজমাঈনদের অন্তরে। সে রহস্য উন্মোচনে উদগ্রীব হযরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা.। তিনি মনস্থির করলেন, এর কারণ খোঁজে বের করবই।

একদিনের ঘটনা। হযরত আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. সেই আনসার সাহাবির বাড়িতে গেলেন।
-বললেন, আমি আপনার বাড়িতে মেহমান হতে চাই। অনুমতি পাব কি?
-জী অবশ্যই।
এই বলে আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. তার বাড়ির মেহমান বনে গেলেন। সংকল্প তার রহস্য উদঘাটন। জান্নাত প্রাপ্তির গোপন আমলের তালাশ। যে আমলটি আবদুল্লাহ ইবনে ওমরকেও জান্নাতি বানিয়ে দেবে।
আনসার সাহাবি রাতে এশার নামাজ পড়ে বাড়ি এলেন। মেহমানকে নিয়ে খাওয়া-দাওয়া সেরে ঘুমিয়ে পড়লেন।
আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. ঘুমোয় না। রাত জেগে দেখবেন- কী তার গোপন আমল! যার জন্য নবীর সা. মুখে তার জান্নাতের সুসংবাদ ভেসে বেড়ায়।
রাত গভীর। আনসার সাহাবির ঘুমটাও গভীর। তাহাজ্জুদের সময় হতেই জেগে ওঠলেন। তাহাজ্জুদের নামাজ পড়লেন। ফজরের প্রস্তুতি গ্রহণ করলেন। ব্যাস, আজ এতোটুকুনই।

আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা. হতাশ হলেন। ভাবছেন, এ আমল তো আমারও নিয়মিত, তাহলে বাড়তিটা কোথায়! যাক, আরেকদিন থাকি। হয়ত সন্ধান পেয়ে যাব।
পরদিন একই কাহিনি। নতুন কিছু দেখতে না পেয়ে রীতিমত হতাশই হলেন। এভাবে তিনদিন লুকিয়ে দেখলেন তার আমল। কিন্তু এশা থেকে ফজর পর্যন্ত তাহাজ্জুদের আমল ছাড়া কিছুই পেলেন না তিনি। অপেক্ষার পালা শেষ। আর সময় হবে না। আজ জানতেই হবে।
আনসার সাহাবির কাছে বিদায় নিতে গেলেন আবদুল্লাহ ইবনে ওমর রা.। বিদায়ের প্রাক্কালে বললেন-
– আসলে আমি ভিন্ন কোন কারণে আপনার আশ্রয়প্রার্থী ছিলাম না। আমার উদ্দেশ্য ছিল আপনার সেই গোপন আমলটি খোঁজে বের করা। যার জন্য নবীজি সা. আপনাকে জান্নাতি বলে সম্বোধন করেন। বলবেন কী আপনার সেই আমলটি?
-আমার তেমন কোন আমল নেই। তবে একটা ব্যাপারে আমি স্পষ্ট যে, কোন মুসলমানের ব্যাপারে আমার হৃদয়ে সামান্যতম বিদ্বেষ নেই। মুমিনের প্রতি আমার দিল স্বচ্ছ এবং সাফ। বললেন, আনসার সাহাবি।

প্রিয় পাঠক, সাহাবি জীবনী থেকে পাওয়া এ আমলটি আমাদের জন্য কি খুব প্রয়োজন বলে মনে হয় না? কুরআনের আয়াতটি পড়ুন-

إِلَّا مَنْ أَتَى اللَّهَ بِقَلْبٍ سَلِيمٍ

“(একমাত্র ঐ ব্যক্তি উপকৃত হবে), যে পরিশুদ্ধ অন্তর নিয়ে আগমন করবে।” [ সূরা শু’আরা ৮৮ ]

লেখক: সহ-সম্পাদক, আওয়ার ইসলাম

Comment

Share.

Leave A Reply