রাতের আঁধারে কাকরাইল দখলের ষড়যন্ত্র!

0

রেজা আল কারীম : সর্বশেষ পরিস্থিতি হলো সা’দপন্থীরা গেইটের বাহিরে অবস্থান নিয়েছেন৷ মাঝেমধ্যে শ্লোগান দিচ্ছেন এবং গেইট ভেঙ্গে ভেতরে প্রবেশের চেষ্টা করছেন! আইনশৃংখলা বাহিনী ও পুলিশ প্রসাশনের লোকজন সেখানে উপস্থিত হয়েছেন এবং দখলদার বাহিনীকে গেইটের ভেতরে প্রবেশে বাঁধা প্রদান করছেন৷ তবে, তাড়িয়ে দিতে জোরালো কোনো ভূমিকা একনো দেখা যায়নি৷ 

এদিকে মসজিদের ভেতরে শুরার দুজন জিম্মাদারসহ অল্প সংখ্যক স্থায়ী মুকিম এবং বিভিন্ন দায়িত্বে নিয়োজিত কিছুসংখ্যক সাথি ছাড়া হাজার খানেক সাধারণ মুসল্লি অবস্থান করছেন৷ সা’দ পন্থীরা কোনোভাবে গেইট ভেঙ্গে মসজিদের ভেতরে প্রবেশ করলেই ভয়াবহ বিশৃংখলা ও অনাকাঙ্খিত কিছু ঘটার আশংকা করা যাচ্ছে।

যা দেখে এসেছি
রাত সাড়ে এগারোটা তখন৷ পল্টন থেকে গুলিস্তান হয়ে মাদরাসা এসছিলাম৷ গুলিস্তান মাজার মোড়ের কাছাকাছি পৌছতে দেখলাম দক্ষিণ দিক থেকে একটি মিনি ট্রাকে করে তাবলীগী কিছু সাথি কাকরাইলের দিকে যাচ্ছে৷ ভাবলাম, হয়ত তারা চিল্লা শেষ করে বা জামাত থেকে ফিরছে৷ আল্লাহর দ্বীনের মেহনতের সাথীদের দেখলেই আলাদা করে চিনা যায়৷

মাদরাসায় পৌঁছলাম প্রায় সাড়ে বারোটা বাজে৷ কিছুক্ষণ পর ফেসবুক ওপেন করতে কিছু ভিডিও ও পোস্ট মোবাইলের স্ক্রীনে ভেসে উঠলো! আঁতকে উঠলাম তখন! শরীরের পশম দাঁড়িয়ে যাচ্ছে৷ হাত-পা কাঁপছে! কি দেখছি এসব, এতো রাত পর কি হচ্ছে তাহলে কাকরাইলে? কি ঘটছে বা ঘটতে যাচ্ছে ওখানে! চোখে ঘুম নেই!

তাহলে আমরা আসার পথে ওরা কাদেরকে দেখলাম? তারা কি প্রকৃত দ্বীনের মেহনতকারী কেউ না অন্য কেউ? পরের ঘটনা থেকে বুঝা যাচ্ছে ওরা আসলে দ্বীনের লেবাসে ফেৎনাসৃষ্টিকারী সা’দপন্থী! তারা এসেছে রাতের আধারে কাকরাইল দখল করতে! আচ্ছা গভীর রাতের অন্ধকারে দখল করতে কারা আসে? ওরা কি আল্লাহর দ্বীনের জন্য তাবলীগ করছে, না কি অন্য কাউকে খুশি করতে? আজকের একটি ভিডিওতেও বলতে শুনা যাচ্ছে, আলেম উলামাদের তুচ্চ তাচ্চিল্য করে একজন লোক বলছে, ‘পাকিস্তানপন্থীরা আর কতো দিন কাকরাইল নিয়ন্ত্রণ করবে!’ সা’দ অনুসারীরা কথায় কথায় পাকিস্তানী, পাকিস্তানপন্থী বলে কি বুঝাতে চায়?

সর্বশেষ পরিস্থিতি
সর্বশেষ পরিস্থিতি জানতে রাত ২:০৩ এ কথা হয় কাকরাইলের স্থায়ী মুকিম এক ভাইয়ের সাথে৷ তিনি জানান ‘ভেতরের পরিবেশ প্রায় শান্ত৷ সাথিরা কেউ ঘুমিয়ে পড়েছেন, কেউ আমলে ব্যস্ত৷ তবে গেইটের বাহিরে কতিপয় সা’দপন্থীরা এসে জড়ো হয়ে হৈ চৈ করছে, মাজেমাজে উচ্চ আওয়াজে চিল্লাচিল্লি করছে৷ গেইট ভেদ করে ভেতরে প্রবেশ করতে চাচ্ছে৷ তবে, পুলিশী বাধায় ভেতরে প্রবেশ করতে পারেনি এখনো৷
ওই মুকিম জানান, সা’দ পন্থীরা যেনো ভেতরে প্রবেশ করতে না পারে, এর জন্য প্রসাশনের আরো গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয়া প্রয়োজন৷ কারণ, ওরা ভেতরে প্রবেশ করলেই একটা বিশৃংখলা ঘটে যাবে৷ এবং কাকরাইলের বাহিরে ঢাকার সাথিরাও যেনো কাকরাইলকে ষড়যন্ত্রকারীদের হাত থেকে রক্ষা করেন, এজন্য প্রত্যেক হালকার সাথিদের কাকরাইলে উপস্থিতি বৃদ্ধি করতে হবে৷ বাহিরের সাথিরা ভেতরের সাথিদের জন্য দোআ ও সহযোগিতা করতে হবে৷’

#লেখকের ফেসবুক ওয়াল থেকে

Comment

Share.

Leave A Reply