কেরানীগঞ্জে মাওলানা সা’দ অনুসারীদের ঢাকা জেলা ইজতেমা চলছে

0

বিশ্ব তাবলীগের কাজের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের নাম অনন্য উচ্চতায় বিশ্বজুড়ে। কারণ এখানেই বিশ্ব ইজতেমা অনুষ্ঠিত হয়। টঙ্গীতে জায়গা সংকুলানের কথা চিন্তা করেই কিন্তু দুই পর্বে অনুষ্ঠিত হয় ইজতেমা। দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্য যে, মাওলানা সাদ কান্ধলবীকে নিয়ে দুই গ্রুপে অবস্থান নেন বাংলাদেশের তাবলীগের সাথীরা। তবে নিজামুদ্দীন মার্কাজ অনুসরণ করেন এমন তাবলীগের সাথীদের দাওয়াত ও তাবলীগের কাজে বার বার বাধা আসছিল। ঢাকার মিরপুরের ইস্টার্ন হাউজিংএ মাঠের কাজ আশিভাগ সমাপ্ত করার পরও তাবলিগের সাথীরা ঢাকা জেলা ইজতেমা করতে পারেনি। বাধারমুখে পড়ে ইজতেমা করতে না পেরে শেষে ঢাকার কেরাণীগঞ্জে বাংলাদেশের জুমহুর আলেমদের বিরোধীতা করে শুরু হলো ঢাকা জেলা ইজতেমা।

বৃহস্পতিবার রাত থেকে পুলিশ প্রশাসন ও আলেম-ওলামাদের বাঁধা ডিঙিয়ে তারা এই ইজতেমা করছে।

বাংলাদেশে দীর্ঘ দিন ধরে নিজামুদ্দিন মার্কাজবিরোধী  আলেম ও মাদরাসা ছাত্ররা তাবলিগের কাজে বাধা প্রদান করছেন বলে অভিযোগ মাওলানা সা’দ অনুসারীদের।

ঢাকা জেলা ইজতেমার জন্য এসব বাধার কারণে চারবার স্থান বদল করতে হয়েছে মাওলানা সাদপন্থী তাবলীগীদের। সবশেষ গত সাপ্তাহে ঢাকার মিরপুরের ইষ্টান হাউজিংএ মাঠের কাজ প্রায় সমাপ্ত করলেও সেখানে বাধারমুখে ইজতেমা করতে পারেনি তারা।

এরপর গত মাওলানা সাদের অনুসারীরা পুরান ঢাকার কেরাণীগঞ্জে ময়দানের কাজ শুরু করেন। শতশত অযুখানা, টয়লেট, ও বিশাল সামিয়ানা তৈরি করেন। সেখানে প্রশাসনের পক্ষ থেকে বাঁধা আসে।

ফলে নিরূপায় হয়ে নিজামুদ্দিনপন্থী তাবলীগের মুরুব্বিগণ গত বৃহস্পতিবার রাতে কেরাণীগঞ্জে তাবলীগের ইজতেমা করার সিদ্ধান্ত নেন। ঘোষণার পরপরই বৃহস্পতিবার রাত থেকে ইজতেমার ময়দান কেরাণীগঞ্জের খোলামোড়ে মুসল্লিদের ঢল নামতে থাকে। বাদ ফজর কাকরাইলের মুরুব্বি মাওলানা মুহাম্মদউল্লার আম বয়ানের মধ্য দিয়ে ইজতেমা শুরু হয়।

প্রসঙ্গত, নিজামুদ্দীন মার্কাজের মুরুব্বী বিশ্ব আমীর মাওলানা সাদ কান্ধলবীর বিরুদ্ধে তার কিছু বয়ানের বিরোধিতা করে আলেমদের একটি গ্রুপ আলমী শূরা গঠন করেন। ফলে সমগ্র বিশ্বেই শুরু হয় বিভাজন।

Comment

Share.

Leave A Reply