খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য ৫ সদস্যের মেডিকেল বোর্ড গঠন

0

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য হাইকোর্টের নির্দেশে পাঁচ সদস্যের মেডিক্যাল বোর্ড গঠন করেছে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

বোর্ডের সদস্যরা হলেন, কার্ডিওলজি বিভাগের প্রধান সজল কৃষ্ণ ব্যানার্জি, রিউমেটলজি বিভাগের সৈয়দ আতিকুল হক, অর্থোপেডিক বিভাগের নুকুল দত্ত, ফিজিক্যাল মেডিসিন বিভাগের বদরুন্নেছা এবং ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের আব্দুল জলিল চৌধুরী।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাঁচ বছরের কারাদণ্ড নিয়ে কারাগারে যাওয়া বিএনপি নেত্রীর চিকিৎসায় এ নিয়ে তৃতীয়বারের মতো মেডিকেল বোর্ড গঠন হলো।

গত এপ্রিলে একবার গঠন করা হয় মেডিকেল বোর্ড। সে সময় বোর্ডের পরামর্শে ৭ এপ্রিল তাকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে এনে শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষাও করা হয়।

এই বোর্ড গঠনের আগে বিএনপি দাবি করেছিল, তাদের নেত্রীর শারীরিক অবস্থা সঙ্গীন। তাকে দ্রুত বেসরকারি হাসপাতালে নিতে হবে। তবে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে বোর্ডের সদস্যরা জানান, বিএনপি নেত্রীর শারীরিক অবস্থা আশঙ্কাজনক নয়।

গত ৯ সেপ্টেম্বর বিএনপির একটি প্রতিনিধি দল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের সঙ্গে দেখা করে আবারও তাদের নেত্রীকে বেসরকারি হাসপাতালে নেয়ার দাবি করে। তখনও বিএনপি দাবি করে, তাদের নেত্রীর শারীরিক অবস্থা সঙ্গীন।

এরপর খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা পর্যযবেক্ষণে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক আব্দুল জলিল চৌধুরী (ইন্টারনাল মেডিসিন), অধ্যাপক হারিসুল হক (কার্ডিওলজি), অধ্যাপক আবু জাফর চৌধুরী (অর্থোপেডিক সার্জারি), সহযোগী অধ্যাপক তারেক রেজা আলী (চক্ষু) ও সহযোগী অধ্যাপক বদরুন্নেসা আহমেদ (ফিজিক্যাল মেডিসিন)কে নিয়ে গঠন করা হয় আরও একটি মেডিকেল বোর্ড।

এই বোর্ডও পরীক্ষা নিরীক্ষা করে জানায়, বিএনপি নেত্রীর অবস্থা আশঙ্কাজনক নয়। তবে তাকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে ভর্তির পরামর্শ দেয় এই বোর্ড।

অবশ্য এই বোর্ডকে মেনে নিতে রাজি হয়নি বিএনপি। আর বোর্ড পুনর্গঠন চেয়ে উচ্চ আদালতে রিট করা হয় দলের পক্ষ থেকে। আর শুনানি শেষে গত ৪ অক্টোবর খালেদা জিয়াকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে ভর্তি এবং মেডিকেল বোর্ড পুনর্গঠনের নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।

এই নির্দেশ অনুযায়ী আজ বিএনপি নেত্রীকে কারাগার থেকে বঙ্গবন্ধু মেডিকেলে নিয়ে আসার প্রস্তুতি নেয়া হয়। কেবিন ব্লকের ৬১১ এবং ৬১২ নম্বর কক্ষটি প্রস্তুতও করে রাখা হয়েছে।

এরই মধ্যে খালেদা জিয়ার ব্যবহারের জিনিসপত্র ইতোমধ্যে হাসপাতালে আনা হয়েছে। বিকাল তিন টার দিকে একটি গাড়িতে (ঢাকা মেট্রো ঠ-১৪১৫৮৬) করে এসব জিনিসপত্র আনা হয়।

অবশ্য এর আগে খালেদা জিয়া এই হাসপাতালে আসবেন না বলে জানিয়েছিলেন। এমনকি সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালেও তিনি যেতে রাজি হননি। বিএনপির পক্ষ থেকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তির দাবি জানানো হচ্ছিল। পরে তারা এর পাশাপাশি আরেক বেসরকার হাসপাতাল অ্যাপোলোতে ভর্তি করার সুযোগ দেয়ার অনুরোধ করে।

তবে সরকার বেসরকারি হাসপাতালে বিএনপি নেত্রীকে ভর্তি করতে দিতে রাজি নয়।

সাবেক প্রধানমন্ত্রী বাত, চোখের সমস্যা, ডায়াবেটিকসহ নানা রোগে ভুগছেন। তার একটি হাঁটুও প্রতিস্থাপন করা। হাতেও সমস্যা রয়েছে।

Comment

Share.

Leave A Reply