রিয়াদ সম্মেলন বয়কটের সিদ্ধান্ত নিলো আমেরিকা ও ব্রিটেন

0

মার্কিন ও ব্রিটিশ সরকার সৌদি আরবের রাজধানী রিয়াদে আগামী সপ্তাহে অনুষ্ঠেয় বিনিয়োগ বিষয়ক সম্মেলন বয়কটের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

তুরস্কের ইস্তাম্বুলস্থ সৌদি দূতাবাসে দেশটির সরকার বিরোধী সাংবাদিক জামাল খাসোগি হত্যাকাণ্ডের আশঙ্কা প্রবল হওয়ার পর এ সিদ্ধান্ত নিল ওয়াশিংটন ও লন্ডন।

বৃহস্পতিবার ব্রিটেন ও আমেরিকা ঘোষণা করেছে, মার্কিন অর্থমন্ত্রী স্টিভ নিউচিন ও ব্রিটিশ বাণিজ্যমন্ত্রী লিয়াম ফক্স রিয়াদ সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন না।

জামাল খাসোগি নিখোঁজ হওয়ার ঘটনায় এই প্রথম আমেরিকা ও ব্রিটেন সৌদি আরবের বিরুদ্ধে কার্যকর পদক্ষেপ নিল। খাসোগি গত ২ অক্টোবর ইস্তাম্বুলস্থ সৌদি কনস্যুলেটে প্রবেশ করার পর আর বের হননি।

তুরস্কের কর্মকর্তারা উপযুক্ত দলিল-প্রমাণ পেশ করে জানিয়েছেন, খাসোগিকে ওই কনস্যুলেটের ভেতর নির্যাতন করে হত্যা করার পর তার লাশ কেটে টুকরা টুকরা করা হয়েছে।

সৌদি আরব থেকে বিশেষ বিমানে করে আসা ১৫ সদস্যের একটি নিরাপত্তা দল এ কাজ করেছে। কিন্তু রিয়াদ শুরু থেকেই খাসোগি সংক্রান্ত এসব তথ্য বেমালুম অস্বীকার করে এসেছে।

আমেরিকা ও ব্রিটেনের পাশাপাশি হল্যান্ড ও ফ্রান্সও রিয়াদ সম্মেলন বয়কট করে ঘোষণা করেছে, তাদের বাণিজ্যমন্ত্রীরা ‘মরুভূমির ড্যাভোস’ খ্যাত ওই সম্মেলনে যোগ দিচ্ছেন না। সৌদি যুবরাজ মোহাম্মাদ বিন সালমান তার দেশে ব্যাপকভাবে বিদেশি পুঁজি আকৃষ্ট করার জন্য ওই সম্মেলনের আয়োজন করেছেন।

ভবিষ্যতে তেলের ওপর সৌদি আরবের নির্ভরতা কমানোর লক্ষ্যে তিনি এ সম্মেলনের আয়োজন করেন।

কিন্তু জামাল খাসোগির নিহত হওয়ার ঘটনায় বিন সালমানের সরাসরি হাত থাকার খবর প্রকাশিত হওয়ার পর থেকে বহু বিদেশি কোম্পানি ও দেশ রিয়াদ সম্মেলন বয়কটের সিদ্ধান্ত নেন।

ব্রিটিশ ধনকুবের রিচার্ড ব্রানসন রিয়াদ সম্মেলেন যোগ দিয়ে সৌদি আরবে ১০০ কোটি ডলার পুঁজি বিনিয়োগ করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি খাসোগি হত্যাকান্ডের জের ধরে রিয়াদ সম্মেলন বয়কট করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন।

সূত্র: পার্সটুডে

Comment

Share.

Leave A Reply