বিয়ের আগে বর-কনেকে যে বিষয়গুলো জানা জরুরি

0

বিয়ে সামাজিক ও শরিয়তসম্মত বন্ধন। মানুষের চরিত্রকে সুন্দর ও নিরাপদ রাখতে, অবৈধ দৃষ্টি থেকে চোখকে হেফাজত করতে এবং লজ্জাস্থানের নিরাপত্তা ও সংরক্ষণে বিয়ের গুরুত্ব অপরিসীম। তাই দেনমোহর ধার্য সাপেক্ষে ইসলাম বিয়েকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়েছে।

বিয়ের মাধ্যমেই মুসলিম প্রজন্মের আবির্ভাব। বিয়ের মাধ্যমে অর্জিত হয় মনের শান্তি, হৃদয়ের স্থিরতা, চরিত্রের পবিত্রতা ও জীবনের পরম সুখের ঠিকানা।

বিয়ে সম্পাদনের আগে বর-কনের ব্যাপারে অভিভাবকদের কিছু বিষয়ে খোঁজ-খবর নেয়া জরুরি। বিয়ের পরে যেন মনের সুখ, হৃদয়ের শান্তি চোখের অশ্রুতে পরিণত না হয়। অশান্তির আগুণ জ্বলে না ওঠে।

তাই তো দেনমোহর নির্ধারণের পর বিয়ে পড়ানোর আগেও কাজী, ইমাম ও উভয়পক্ষের অভিভাবকরা বর-কনের গুরুত্বপূর্ণ যে বিষয়গুলো খোঁজ-খবর নেবেন তাহলো-

বর-কনের বিয়ের মূল অভিভাবক শরিয়তসম্মত বৈধ ব্যক্তি কি না? তা জেনে নিতে হবে।
রাষ্ট্রীয় আইনানুসারে বর ও কনে উভয়ে প্রাপ্ত বয়স্ক কিনা তাও জেনে নিতে হবে।
বরের একাধিক কিংবা ৪ স্ত্রী বর্তমান থাকাবস্থায় এটা পঞ্চম বিয়ে কিনা?

বরের এটা একাধিক বিয়ে হলে আগের স্ত্রীর অনুমতি আছে কিনা?

কনের আগে বিয়ে হয়েছে কিনা? বিয়ে হয়ে থাকলে সে সম্পর্ক এখনও বিদ্যমান আছে কিনা জেনে নিতে হবে।
বর বা কনে যাদের বিয়ে হচ্ছে তারা মুসলিম কিনা তাও জেনে নিতে হবে।
কনে বিধবা কিংবা তালাকপ্রাপ্ত হলে ইদ্দত অতিবাহিত করেছে কিনা তাও জেনে নিতে হবে।
কনে আগের স্বামীর ঔরসজাত সন্তান সম্ভববা কিনা তা জেনে নিতে হবে।

মনে রাখতে হবে
কনে যদি ইদ্দত পালন কিংবা সন্তান সম্ভবা হয় তবে ইদ্দত পালন ও সন্তান প্রসব করা ছাড়া বিয়ে বৈধ নয়।
বর যদি বিবাহিত হয় তবে এ বিষয়ে খেয়াল রাখতে হবে বর্তমানে যাকে বিয়ে করছে সে কনে আগের স্ত্রীর বোন, ফুফু, বোনের মেয়ে কিংবা ভাইয়ের মেয়ে কিনা। যদি এদের কেউ হয় তবে এ বিয়ে বৈধ হবে না।
কনে অন্যের স্ত্রী অবস্থায় বিদ্যমান আছে কিনা সেটিও বরের অভিভাবকসহ কাজী ও ইমামকে জেনে নিতে হবে।
যদি কনে বিবাহিতা হয় তবে আগের স্বামী তাকে তালাক দিয়েছে কিনা তা জেনে নিতে হবে।

সর্বোপরি কথা হলো
বিয়েতে কনের সম্মতি অনেক বড় বিষয়। বিয়েতে তার সম্মতি আছে কিনা কাজী ও ইমামকে তা গুরুত্বের সঙ্গে জেনে নিতে হবে।
বিয়ে বৈধ হওয়ার জন্য বর ও কনের উপযুক্ত সংখ্যক সাক্ষী আছে কিনা তা-ও জেনে নিতে হবে।

উল্লেখিত বিষয়গুলো ঠিক থাকলে খুতবা পাঠের মাধ্যমে অভিভাবক, কাজী কিংবা ইমাম বিয়ে পড়াবেন। খুতবায় পঠিত বিয়ে সংক্রান্ত কুরআনের আয়াত ও হাদিসের মর্মার্থ বর ও কনেকে বুঝিয়ে দেয়া।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে শান্তি ও সুখ-স্বাচ্ছন্দ্যময় জীবন লাভে বিয়ের ক্ষেত্রে বর ও কনের উল্লেখিত বিষয়গুলো বর, কনে, অভিভাবক, ইমাম, কাজীসহ দায়িত্বশীল সবাইকে বিয়ের আগেই খোঁজ-খবর নেয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।

Comment

Share.

Leave A Reply