ইজতেমা মায়দানে আজান-নামাজ চালুর দাবিতে উত্তরায় বিক্ষোভ

0

ইজতেমার ময়দানে আজান-নামাজ বন্ধ রয়েছে দাবি করে ২৪ ঘন্টার মাঝে আজান ও নামাজ চালুর দাবি জানিয়েছে বৃহত্তর উত্তরার আলেম-উলামা ও তাবলিগের সাধারণ মুসল্লিরা।

আজ (৪ ডিসেম্বর) সকাল ১০ টায় আব্দুল্লাহপুর পলওয়েল মার্কেটের সামনে থেকে টঙ্গী ময়দানে আলেম ওলামা ও মাদরাসার ছাত্রদের ওপর সাদপন্থীদের নৃশংস হামলা ও হত্যার প্রতিবাদে বৃহত্তর উত্তরার আলেম ওলামা ও তাবলিগের সাথীদের উদ্যোগে এ বিক্ষোভ অনুষ্ঠিত হয়।

বৃহত্তর উত্তরা জোনের উলামায়ে কেরামের মুখপাত্র মুফতি কেফায়াতুল্লাহ আল-আজহারী’র নেতৃত্বে সকাল ১০ টায় মিছিল শুরু হয়ে উত্তরা হাউজ বিল্ডিং, আজমপুর ঘুরে মিছিলটি পুনরায় আব্দুল্লাহপুর এসে শেষ হয়।

মিছিল শেষে বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তারা গত শনিবার টঙ্গী ইজতেমার ময়দানে নিরীহ-নিরস্ত্র আলেম-উলামা ছাত্র এবং সাধারণ তাবলিগের সাথীদের ওপর আক্রমণের তিব্র নিন্দা জানিয়েছেন।

উত্তরা তাকওয়া মসজিদের খতীব মুফতি কেফায়াতুল্লাহ আল-আজহারী বলেন, ইজতেমা মাঠে যারা নিরীহ নিরস্ত্র সাধারণ মুসল্লী এবং আলেম-উলামা ছাত্রদের ওপর বর্বোরচিত হামলা চালিয়েছে তাদের বিচার করতে হবে এবং হত্যাকাণ্ডের জন্য এক নম্বরের হুকুমের আসামী হলেন ওয়াসিফুল ইসলাম, নাসিম, আশরাফ আলী, আবদুল্লাহ মানছুরসহ এতায়াতপন্থীরা।

দক্ষিণখান দারুল উলুম মাদরাসার ভাইস প্রিন্সিপাল মাওলানা শিব্বীর আহমদ বলেন, যারা আলেম-উলামা এবং ছাত্র ও সাধারণ তাবলীগের সাথীদের ওপর হামলা চালিয়েছে তারা প্রমাণ করেছে সাদের অনুসারীরা সন্ত্রাসী। এ সন্ত্রাসী জঙ্গিবাদের স্থান ইসলামে নাই।

মিছিল পরবর্তী সমাবেশে ঘোষণাপত্র পাঠ করেন জামিয়া ইসলামিয়া গাওয়ার মাদরাসার মুহাদ্দিস মুফতি জহির ইবনে মুসলিম।

তিনি আহতদের যথাযথ চিকিৎসা এবং টঙ্গী ইজতেমার ময়দান উলামায়ে কেরামের কাছে হস্তান্তরসহ ৬দফা দাবি জানান।

উত্তরা বাইতুল মুমিন মাদরাসার প্রিন্সিপাল মুফতি নেয়ামতুল্লাহ আমিনের সঞ্চালনায় মিছিল পরবর্তী সমাবেশে অন্যান্যাদের মাঝে বক্তব্য রাখেন, জামিয়া সুবহানিয়া টঙ্গী এর প্রিন্সিপাল মুফতি মুহিউদ্দীন মাসুম, জামিয়া বাবুস সালামের প্রিন্সিপাল মাওলানা আনিছুর রহমানসহ অন্যান্য উলামায়ে কেরাম।

পরে জামিয়াতুস সাহাবা উত্তরা’র প্রিন্সিপাল মাওলানা রুহুল আমিন উজানী’র দোয়ার মাধ্যমে কর্মসূচি শেষ করা হয়।#আ.ইসলাম

Comment

Share.

Leave A Reply