আমরা কখনো সুফল ঘরে তুলতে পারি না

0
সৈয়দ শামছুল হুদা ::

আমাদের এই বিশাল বিশাল মিছিলগুলো, জানি- কোনই কাজে আসবে না। কোন অপরাধীর বিচার নিয়ে আসবে না। টঙ্গীর মাঠে যারা সশস্ত্র অবস্থায় নিরীহ আলেমদের ওপরে হায়েনার মতো ঝাপিয়ে পড়তে পেরেছে, এটাকে মহান যোগ্যতা হিসেবেই বিবেচনা করা হবে।এমন দুঃসাহসিক কাজ যারা করতে পারে, প্রয়োজনে আবারও তাদের ভিন্ন কৌশলে ব্যবহার করা হবে। আমার মনে হয়- ২৮শে অক্টোবর, ৫মে ও ১লা ডিসেম্বর। চিত্র একই। অপরাধীও কাছাকাছি চিন্তার মানুষ।

এটা খুব পরিস্কার যে, যেহেতু আলেম, নিরীহ তাবলীগের সাথীরা মার খেয়েছে সুতরাং কোন অপরাধীই চিহ্নিত হবে না। গ্রেফতার হবে না। বিচারের আওতায় আসবে না। আমরা অতীতে এমন অসংখ্যবার অরণ্যে রোদন করেছি। আজও করছি।উপরুন্ত এই বিশাল বিশাল মিছিলগুলো যে ক্ষতিটা করছে সেটা হলো, এদেশকে যারা মৌলবাদ মুক্ত দেখতে চায়, তাদের অন্তজ্বালা বৃদ্ধি করছে। তাদের কুবুদ্ধিতে শান বাড়াচ্ছে। একবার জেগে উঠার পর আমরাতো কিছুই পাবো না, কিন্তু তাদের জন্য চিন্তার খোরাক দিয়ে যাবো।

আমরা শাহবাগ থেকে ফাঁসি ফাঁসি চাই শ্লোগান শিখেছি। কারো ছবি দলিত মথিত করা শিখেছি। আমরা নির্দিষ্ট ঘরানার মানুষের সামনে হুঙ্কার দেওয়া শিখেছি। যা আমার সাধ্যের মধ্যে নয়, যা করার কোন ক্ষমতাই আমার নেই, এমন সব হুমকি-ধমকি দেওয়া শিখেছি। রাষ্ট্রে আমার শক্তি কতটুকু তা আমি নিজেও জানি না। রাষ্ট্রীয় শক্তিকে মোকাবেলা করার কোন শক্তিই আমার নেই। তারপরও আমি এমন সব কথা বলি, মনে হয়, আমার কথায় রাষ্ট্র থরথর করে কাঁপে। মাহফিলগুলোতে এমন সব হুঙ্কার দিয়ে দিয়ে আমরা অভ্যস্থ হয়ে গিযেছি। রাষ্ট্র যদি গতিপথ আগলে দাঁড়ায় তা মোকাবেলা করার কোন শক্তি আছে বলে আমার জানা নাই। বাস্তবে আমি এটা বিশ্বাস করি যে, যে কোন সময় রাষ্ট্র আমার গতিপথ স্তব্দ করে দিতে পারে।

হাটহাজারীতে দুই মাইলব্যাপী মিছিল হযেছে। এত বড় একটি মাদ্রাসার কিছু অংশ ছাত্রও যদি মিছিলে শরীক হয়, তাতেও কয়েক মাইল হয়ে যায়। কিন্তু সেখানে কি ২০০সাধারণ মানুষ ছিল? ঢাকার বড় বড় মিছিলগুলোতে শুধু কওমী মাদ্রাসার ছাত্র শিক্ষকরাই। অথচ জঘন্য এই ঘটনার প্রতিবাদে সাধারণ মানুষও রাস্তায় নেমে আসা দরকার ছিল। কিন্তু সেটা কি বাস্তবে হযেছে? হয়নি। যারা এতাআতি, যারা সাদিয়ানা তরিকার অনুসারী, তারা কিন্তু সব তরীকার মানুষকে জড়ো করতে পেরেছে। তাদের সাথে কিছু আলেমও আছে। সাধারণ মানুষও আছে। আছে অস্ত্রধারী সন্ত্রাসী গোষ্ঠীও।

04.12.2018

Comment

Share.

Leave A Reply