সাথীদের উদ্দেশে কাকরাইল মারকাযের নতুন নির্দেশনা

0

কওমিকণ্ঠ : নির্বাচন সামরে রেখে ইজতেমা মাঠে জোড় বন্ধ থাকায় তাবলিগের সাথীদের জন্য নির্দেশনা দিয়ে চিঠি পাঠিয়েছে কাকরাইল মারকায।

৩ ডিসেম্বর কাকরাইলের মারকযযের প্যাডে শুরা সদস্য  মাওলানা যোবায়ের আহমদ স্বাক্ষরিত চিঠি প্রেরণ করা হয়।

চিঠিতে বলা হয়, গত ১ ডিসেম্বর টঙ্গি ময়দানে সাথীদের ওপর যে হালাত এসেছে তা অত্যন্ত হৃদয়-বিদারক। দুনিয়াতে যেসব হালাত আসে তা আল্লাহ তায়ালার পক্ষ থেকে, হালাত চলে যায়। কিন্তু হালতের ওপর যে আমল করা হয় তা অবশিষ্ট থাকে।

এ জন্য এই হালতে তওবা, এস্তেগফার করি এবং দোয়া ইউনুসের ওপর আমল করি। ইনশাল্লাহ আল্লাহ তায়ালা হলাহ দূর করে দিবেন।

এ অবস্থায় জমে না থেকে দীনি দাওয়াতের এ কাজ আরও বেগমান করার কথাও বলা হয় চিঠিতে।

বর্তমান অবস্থার প্রেক্ষিতে কাকরাইলের পরামর্শে নিচের সিদ্ধান্তগুলো ঠিক করা হয়-

ক. পাঁচদিনের জোড় ৭-১১ ডিসেম্বর-২০১৮ টঙ্গীর ময়দানে হওয়ার কথা ছিল তা হবে না।

খ. যেসব সাল, ৩ চিল্লার সাথী ও কম-বেশি ওয়াক্ত লাগানাে উলামা হযরত পাঁচ দিনের জোড়ের জন্য তৈরি হয়েছিলেন, তাদের জেলা মারকাযে ৫/৭ দিনের জামাত বানিয়ে নিজ জেলা সফর করা।

গ. জোড় থেকে যে সময় ১ চিল্লা, ৩ চিল্লার জামাত বের হওয়ার কথা ছিল সেসব জামাত নিজ জেলা থেকে ৪০ দিনের জন্য বের হবে, জামাতের রওনগী ও ওয়াপেসী মারকায থেকে হবে ইনশাআল্লাহ।

খ. যারা নিজ জেলা থেকে জামাত বের করতে পারবেন না, তারা জামাতগুলােকে কাকরাইলে পাঠাতে পারবেন।

ঙ. জামাতের নম্বর, রোখ ও পর্চার কাগজ কাকরাইলের তাশকিল থেকে নিলে ভালাে হয়।

চ. যে থানার সাথী সে থানায় রোখ না করা মােনাসিব।

ছ. প্রয়ােজনে জেলার জিম্মাদার সাথীগণ পার্শ্ববর্তী জেলার জিম্মাদার সাথীদের সাথে পরামর্শ করে পাশ্ববর্তী জেলায়ও জামাতের রোখ দিতে পারেন।

Comment

Share.

Leave A Reply